মসজিদে শিষ্টাচারবিরুদ্ধ আচরণের বিষয়ে করণীয় কী?

সাহাবীদের সমাজ ছিলো মানব ইতিহাসের অন্যতম শ্রেষ্ঠ একটি সমাজ। যদিও তাঁরা রাসূলের (সা) মতো ভুলের ঊর্ধ্বে ছিলেন না। সকল সাহাবীর ঈমান এবং একীনও একই পর্যায়ের ছিলো না। সেই সমাজের অনেকেই ইসলামের জন্য নিজের জীবনবাজি রেখেছিলেন, এটি সত্য। কিন্তু সেই সমাজেরই কেউ কেউ আবার অন্যায় দৃষ্টি থেকে নিজেকে বিরত রাখতে ব্যর্থ হয়েছিলেন, এটিও সত্য। এমনকি মসজিদের মতো পবিত্র অঙ্গনেও এ ধরনের সমস্যা হয়েছে।

ইবনে আব্বাস বর্ণনা করেছেন:

“একজন সুন্দরী নারী, যাকে সবচেয়ে সুন্দরী নারীদের একজন হিসাবে গণ্য করা হতো, তিনি মসজিদে নববীতে নারীদের কাতারে নিয়মিত নামাজ পড়তেন। ওই নারীর প্রতি দৃষ্টি দেয়া থেকে বাঁচতে পুরুষদের অনেকে প্রথম কাতারে চলে যেতো; আবার কেউ কেউ ধীরেসুস্থে হাঁটতো, যেন শেষের কাতারে দাঁড়ানো যায়। শেষের কাতারের পুরুষরা যখন রুকুতে যেতো, তখন তাদের কেউ কেউ ওই নারীকে দেখার জন্য পেছনে তাকিয়ে থাকতো। তারা এমনটা করতে থাকলো, যতদিন না আল্লাহ এই মর্মে আয়াত নাযিল করলেন, ‘নিশ্চয় আমি জানি, তোমাদের মধ্যে কে সামনে চলে যায় এবং কে পিছনে থেকে যায়।’” (সূরা হিজর ১৫:২৪)[1]

হাদীসটি অনেকগুলো বিশুদ্ধ সূত্রে বর্ণিত হয়েছে।

এখানে খেয়াল করুন, কিছু পুরুষ যখন মসজিদে শিষ্টাচারবিরুদ্ধ আচরণ করলো, তখন তাদেরকেই দায়ী করে উপদেশ প্রদান করা হলো। এমন কোনো বর্ণনা নেই, যেখানে ওই সুন্দরী নারীটিকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে। অথচ, একই ধরনের ঘটনার ক্ষেত্রে বর্তমানে নারীদের সাথে সম্পূর্ণ উল্টো আচরণ করা হয়। আজকাল ‘ফিতনা’ থেকে বাঁচার নামে নারীদেরকে মসজিদের পাশের কক্ষে পাঠিয়ে দেয়া হয়, এমনকি মসজিদ থেকে বেরও করে দেয়া হয়। এটা স্পষ্ট যে রাসূল (সা) যুগে সংঘটিত এ ধরনের সীমালঙ্ঘনমূলক কাজ নারী-পুরুষের স্বাভাবিক কথাবার্তা বলার রীতির ক্ষেত্রে যেমন কোনো প্রভাব ফেলেনি, তেমনি মুসল্লীদের একোমোডেশনেও কোনো পরিবর্তন আনা হয়নি।

কেউ কেউ যুক্তি দেখান, এ ধরনের স্বাভাবিক কথাবার্তা বলার অনুমতি দিলে তরুণ-তরুণীরা পরস্পরের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে পড়ার সুযোগ বেড়ে যাবে। অথচ আমরা জানি, অল্প বয়সী ছেলেমেয়েরা পরস্পরের প্রতি আকৃষ্ট হওয়ার জন্য মসজিদে আসে না। বরং তরুণদের নিয়ে কাজ করেন, এমন যে কেউ বলবে– বিয়েশাদিকে সহজ করার উদ্দেশ্যে তরুণ-তরুণীদের পরস্পরকে দেখা ও জানার সুযোগ দেয়া জরুরি। তবে তা অবশ্যই শরীয়তের নিয়মনীতির মধ্যে হতে হবে। (এ ধরনের নির্দোষ ভালোলাগা ও বৈবাহিক প্রস্তাব দেয়ার উদ্দেশ্যে পছন্দ করার ব্যাপারটি সমাজের অন্যসব জায়গার মতো মসজিদেও ঘটতে পারে। ইসলামী শরীয়াহ এটি অনুমোদন করে। – সম্পাদক)

বিয়ের উদ্দেশ্যে পরস্পরের মাঝে শালীন কথাবার্তা বলার উপায়কে বন্ধ করে দেয়াটা রাসূলের (সা) সুন্নাহ পরিপন্থী কাজ। এ ধরনের সুযোগ দেয়াটাই বরং রাসূলের (সা) সুন্নতের শিক্ষা। বর্ণিত আছে, মুগিরা ইবনে শুবা (রা) রাসূলকে (সা) বললেন যে তিনি একজন নারীকে বিয়ের করার প্রস্তাব দিয়েছেন। এটি শুনে রাসূল (সা) বললেন, “তুমি কি তাকে দেখেছো?” তিনি বললেন, “না।” রাসূল (সা) বললেন, “দেখে নাও। এতে করে তোমাদের দুজনের মাঝে ভালো সম্পর্ক গড়ে ওঠার সম্ভাবনা বেশি।”[2]

তরুণ-তরুণীদের পরস্পরের প্রতি আকৃষ্ট হওয়ার মতো পরিস্থিতিতে রাসূল (সা) যা করেছেন তা হলো, সৌহার্দ্যমূলক আচরণের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট পক্ষকে সংশোধন করা। আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা) হজের সময় রাসূলের (সা) সাথে তাঁর ভাই ফজলের একটি ঘটনা বর্ণনা করেছেন:

“কুরবানীর দিন (হজ চলাকালীন সময় ১০ জিলহজ) রাসূল (সা) ফজল ইবনে আব্বাসকে (রা) তাঁর উষ্ট্রীর পেছনে বসান। ফজল ছিলো সুদর্শন পুরুষ। ইতোমধ্যে, রাসূল (সা) হজ সম্পর্কে লোকজনের প্রশ্নের উত্তর দিয়ে তিনি অবসর হয়েছেন। এমন সময় খাছয়াম গোত্রের একজন সুন্দরী নারী রাসূলকে (সা) একটি প্রশ্ন জিজ্ঞেস করতে আসলো। নারীটির সৌন্দর্যে আকৃষ্ট হয়ে ফজল বার বার তার দিকে তাকাতে লাগলো। রাসূল (সা) পেছনের দিকে তাকালেন এবং আস্তে করে ফজলের মুখটি অন্য দিকে ঘুরিয়ে দিলেন।”[3]

(চলবে)

[মূল: জাসের আওদা, অনুবাদ: জোবায়ের আল মাহমুদ]

অন্যান্য পর্ব পড়তে এখানে ক্লিক করুন

রেফারেন্স:

[1] হাকিম বলেছেন, “এই হাদীসটির বর্ণনাসূত্রের পরম্পরা (ইসনাদ) বিশুদ্ধ, যদিও বুখারী ও মুসলিম এটি সংকলন করেননি।” আরো দেখুন সহীহ ইবনে খুজায়মা, ৮১৮/২; এবং সহীহ ইবনে হিব্বান, ২/১২৬।

[2]  শরহে মা’আনী আল-আছার, ৩/১৪। এছাড়ও এটি লিপিবদ্ধ রয়েছে আল-মুস্তাদরাকে, ২/১৭৯। হাকিম বলেছেন, “শায়খাইন তথা ইমাম বুখারী ও মুসলিম কর্তৃক নির্ধারিত মানদণ্ড অনুযায়ী বিশুদ্ধ, যদিও তাঁরা হাদীসটি সংকলন করেননি।” অন্যান্য সংকলনে হাদীসটি বর্ণিত হয়েছে।

[3] সুনানে নাসায়ী, ২৬৪২; মুসনাদে আহমদ, ২২৬৬; ইবনে হাজমের মুহাল্লা, ২/২৪৮।

জাসের আওদা
জাসের আওদাhttp://www.jasserauda.net
মাকাসিদে শরীয়াহর উপর একজন শীর্ষস্থানীয় বিশেষজ্ঞ। ‘মাকাসিদ ইনস্টিটিউট গ্লোবাল’ নামক একটি থিংকট্যাংকের প্রেসিডেন্ট। ফিকহ কাউন্সিল অব নর্থ আমেরিকা, দ্য ইউরোপিয়ান কাউন্সিল ফর ফতওয়া এবং ফিকহ একাডেমি অব ইন্ডিয়ার সদস্য। পড়াশোনা করেছেন আল-আজহার বিশ্ববিদ্যালয়ে। পরবর্তীতে যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি অব ওয়েলস এবং কানাডার ইউনিভার্সিটি অব ওয়াটারলু থেকে ইসলামী আইন ও সিস্টেম অ্যানালাইসিসের উপর দুটি পিএইচডি করেছেন। বিভিন্ন দেশের বেশ কটি বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনা করেছেন। আরবী ও ইংরেজিতে প্রায় ২৫টি বইয়ের লেখক।

নিউজলেটার পেতে সাবস্ক্রাইব করুন

আমাদের সকল লেখা ও কার্যক্রমের আপডেট ইমেইলে পেতে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য-প্রতিমন্তব্য

আপনার মন্তব্য লিখুন

অনুগ্রহপূর্বক আপনার মন্তব্য লিখুন
অনুগ্রহপূর্বক এখানে আপনার নাম লিখুন

আরো পড়ুন

নারীরা কি মসজিদ কমিটিতে থাকতে পারে? নারী নেতৃত্ব কি হাদীস দ্বারা নিষিদ্ধ?

প্রাচ্য ও পাশ্চাত্যের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের মুসলিম শিক্ষার্থীদের সাথে আমার প্রায়শ দেখাসাক্ষাৎ হয়। সবখানেই তারা জানতে চায়— তাদের ‌‘মুসলিম স্টুডেন্ট এসোসিয়েশনের’ বোর্ড মেম্বার বা সভাপতি...

নারীরা কি আযান দিতে পারবে? ইমামতি করতে পারবে?

নারীদের জামায়াতে নারীর ইমামতি নিয়ে কোনো দ্বিমত নেই। ইমাম শাফেয়ী, ইবনে আবী শাইবা এবং আব্দুর রাজ্জাকসহ অন্যান্য ইমাম বর্ণনা করেছেন, উম্মুল মুমিনীন উম্মে সালামা...

নারীরা কি পুরুষদের উদ্দেশ্যে মসজিদে লেকচার দিতে পারে?

রাসূল (সা) সাধারণত তাঁর মসজিদে মানুষদেরকে শিক্ষা ও দিকনির্দেশনা দিতেন। তাঁর ইন্তেকালের পর তাঁর সাহাবীগণও তা অব্যাহত রাখেন। অবশ্য প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার যে প্রথা, সে...

সাম্প্রতিক নিবন্ধ

‌দুনিয়াবী শিক্ষাকে ইবাদতে পরিণত করা

পর্ব— এক ১. কথা বলছিলাম মাতৃস্থানীয়া একজন মুরুব্বীর সাথে। প্রায় জীবন সায়াহ্নে পৌঁছে যাওয়া এই নারীর গভীর জীবনবোধ আমাকে প্রায়ই চমৎকৃত করে। অথচ তিনি পড়াশোনা করেছেন...

‘আল্লাহর সার্বভৌমত্ব’ কথাটার তাৎপর্য

ইসলামী রাজনীতির সাথে জড়িত লোকেরা কুরআনের কয়েকটি বাক্য খুব বেশি ব্যবহার ‎‎করেন। এর অন্যতম কারণ হচ্ছে, এ সকল বাক্য তাদের রাজনৈতিক বক্তব্য ব্যাখ্যা করতে...

মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ রাষ্ট্রে ইসলামী রাজনীতির বিপত্তি

এডিটর’স নোট: এই নিবন্ধে প্রকাশিত মতামত সংশ্লিষ্ট লেখকের, সিএসসিএস-এর নয়। নিবন্ধটির বক্তব্যের সার্বিক গুরুত্ব বিবেচনায় নিয়ে আমরা এটি প্রকাশ করছি। আশা করি, পাঠক এ...

নারীরা কি মসজিদ কমিটিতে থাকতে পারে? নারী নেতৃত্ব কি হাদীস দ্বারা নিষিদ্ধ?

প্রাচ্য ও পাশ্চাত্যের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের মুসলিম শিক্ষার্থীদের সাথে আমার প্রায়শ দেখাসাক্ষাৎ হয়। সবখানেই তারা জানতে চায়— তাদের ‌‘মুসলিম স্টুডেন্ট এসোসিয়েশনের’ বোর্ড মেম্বার বা সভাপতি...