'রিক্লেইমিং দ্যা মস্ক' বইয়ের ধারাবাহিক অনুবাদ: পর্ব-১০

শিশুদের কি মসজিদে যাওয়ার অনুমতি আছে? তারা মসজিদের কোথায় নামায পড়বে?

রাসূলের (সা) যুগে ছোট বাচ্চাদেরকে মসজিদে নিয়ে যাওয়া ছিলো মা-বাবাদের জন্য সাধারণ ব্যাপার। কিছুটা বড় বাচ্চারা পুরুষ ও নারীদের কাতারের মাঝখানে আলাদা কাতার করে দাঁড়াতো। এমনকি, কখনো কখনো বাচ্চারা নামাযের ইমামতি করার বর্ণনাও পাওয়া যায়। যেমন— আমর ইবনে সালামাহ (রা)। আগের একটি অধ্যায়ে উল্লেখিত হাদীস থেকে জানা যায়, মাত্র সাত বছর বয়সে আমর (রা) নামাযের ইমামতি করেছিলেন।

তবে বর্তমানে খুব কম বাচ্চারই মনোযোগ সহকারে নামায আদায় কিংবা ইমামতি করার প্রশিক্ষণ রয়েছে। এ কারণেই আমাদের ইসলামী শিক্ষার কারিকুলামে এবং পারিবারিক প্রোগ্রামে ‘মসজিদ বিষয়ক প্রশিক্ষণ’ যুক্ত করাটা গুরুত্বপূর্ণ। শিশুদের জন্য সবচেয়ে ভালো হয় যদি তাদের মা-বাবারা সন্তানদেরকে মসজিদে নিজেদের সাথে রাখেন। নতুবা শিশুদের জন্য একটি নির্দিষ্ট কক্ষ থাকতে পারে, যেখানে স্বেচ্ছাসেবকরা তাদেরকে গাইড করবে। বিশেষত বড় বড় অনুষ্ঠানে যখন মসজিদে অনেক শিশু আসে, তখন এ ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণের দরকার আছে।

শিশুদেরকে সঠিকভাবে নামায পড়াতে শেখানো রাসূলের (সা) সুন্নত। এমনকি মা-বাবা কিংবা শিক্ষক নিজে নামায পড়ার সময়ও বাচ্চাদেরকে এসব শিখিয়ে দিতে পারেন। ইবনে আব্বাস (রা) তাঁর ছোটবেলার স্মৃতি বর্ণনা করে বলেছেন:

“এক রাতে আমি নবীজীর (সা) পেছনে বাম পাশে নামাযে দাঁড়ালাম। তিনি নামাযরত অবস্থায় আমাকে তাঁর হাত দিয়ে টেনে নিলেন এবং তাঁর ডান পাশে দাঁড়ানোর ইশারা করলেন।”[1]

অন্য একটি বর্ণনায় ইবনে আব্বাস (রা) বলেন:

“একদিন ফজরের নামাযের ইকামত হয়ে যাবার পর আমি দুই রাকাত নফল নামায আদায়ের জন্য দাঁড়ালাম। তখন রাসূলুল্লাহ (সা) জামায়াত শুরু করার আগে এসে আমার হাত ধরে ফেললেন এবং বললেন, “তুমি কি ফজরের নামায চার রাকাত পড়বে নাকি?[2]

যাহোক, কোনো কোনো অঞ্চলে সাধারণত শিশু ও নারীদেরকে মসজিদে যেতে নিষেধ করা হয়। এ ধরনের কাজ কোরআনের শিক্ষা ও রাসূলের (সা) প্রামাণ্য সুন্নাহর বিপরীত। এ সংক্রান্ত কয়েকটি হাদীস নিচে তুলে ধরা হলো:

সহীহ বুখারীর একটি অধ্যায় হলো: ‘নামাযরত অবস্থায় বাচ্চা মেয়েকে কাঁধে রাখা সংক্রান্ত অধ্যায়’। এই অধ্যায়ে আবু কাতাদা আল আনসারী (রা) বর্ণনা করেছেন,

“রাসূলুল্লাহ (সা) তাঁর নাতনী উমামাহকে কাঁধে নিয়ে নামায আদায় করছিলেন। উমামাহ হলো আবুল আস বিন রাবী ইবনে আবদে শামসের (তিনি অমুসলিম ছিলেন— সম্পাদক) ঔরসে রাসূলের (সা) মেয়ে জয়নবের (রা) সন্তান। রাসূল (সা) সেজদায় যাওয়ার সময় উমামাহকে নামিয়ে রাখতেন এবং উঠে দাঁড়ানোর সময় পুনরায় তাকে কাঁধে উঠিয়ে নিতেন।[3]

অন্য একটি বর্ণনায় এসেছে, রাসূল (সা) বলেছেন,

“আমি নামাযে দাঁড়ানোর পর তা দীর্ঘায়িত করার ইচ্ছা করি। কিন্তু কোনো শিশুর কান্না শোনার পর নামায সংক্ষিপ্ত করে ফেলি এই ভয়ে যে শিশুটির মা হয়তো কষ্ট পাচ্ছে।[4]

অন্য একটি বর্ণনায় আরো এসেছে,

একদিন সেজদায় থাকা অবস্থায় রাসূলের (সা) নাতি হাসান ও হোসাইন এসে তাঁর পিঠে চড়ে বসে। তারা নিজেরা নেমে না যাওয়া পর্যন্ত তিনি তাদেরকে সরানোর জন্য জোর করেননি। ফলে দীর্ঘক্ষণ তিনি সেজদারত থাকলেন। নামায শেষে তাঁর নিকট দীর্ঘক্ষণ সেজদায় থাকার কারণ জানতে চাওয়া হলে তিনি জবাব দিলেন, ‘আমার নাতিরা আমার পিঠে চড়ে বসেছিলো। আমি তাদেরকে বিরক্ত করতে চাইনি।’ নামায চলাকালেই কয়েকজন সাহাবী রাসূলের (সা) নাতিদেরকে তাঁর পিঠে চড়া থেকে বিরত রাখতে চাইলেন। কিন্তু তিনি সাহাবীদেরকে সরে যাওয়ার ইশারা দেন। পরে নামায শেষ করে তিনি নাতিদেরকে কোলে তুলে নেন।[5]

মসজিদে শিশুদের সাথে এমনই ছিলো রাসূলের (সা) আচরণ। রাসূলের (সা) এই মমতা ও ভালোবাসাময় দৃষ্টান্তই আমাদের অনুসরণ করা উচিত।

[মূল: জাসের আওদা, অনুবাদ: জোবায়ের আল মাহমুদ]

অন্যান্য পর্ব পড়তে এখানে ক্লিক করুন

রেফারেন্স ও নোট:

[1] সহীহ বুখারী, ১/২৫৫।

[2] ইবনে হিব্বান, ৬/২২১।

[3] সহীহ বুখারী, ১/১০৯।

[4] সহীহ বুখারী, ১/১৪৩।

[5] আবু ইয়ালা মাওসিলীর আয-জাওয়াইদ গ্রন্থে আনাস (রা) এই ঘটনা বর্ণনা করেছেন। উপর্যুক্ত দুটি সূত্র থেকে একই ধরনের বর্ণনা বুখারী ও মুসলিমেও রয়েছে।

জাসের আওদাhttp://www.jasserauda.net
মাকাসিদে শরীয়াহর উপর একজন শীর্ষস্থানীয় বিশেষজ্ঞ। ‘মাকাসিদ ইনস্টিটিউট গ্লোবাল’ নামক একটি থিংকট্যাংকের প্রেসিডেন্ট। ফিকহ কাউন্সিল অব নর্থ আমেরিকা, দ্য ইউরোপিয়ান কাউন্সিল ফর ফতওয়া এবং ফিকহ একাডেমি অব ইন্ডিয়ার সদস্য। পড়াশোনা করেছেন আল-আজহার বিশ্ববিদ্যালয়ে। পরবর্তীতে যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি অব ওয়েলস এবং কানাডার ইউনিভার্সিটি অব ওয়াটারলু থেকে ইসলামী আইন ও সিস্টেম অ্যানালাইসিসের উপর দুটি পিএইচডি করেছেন। বিভিন্ন দেশের বেশ কটি বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনা করেছেন। আরবী ও ইংরেজিতে প্রায় ২৫টি বইয়ের লেখক।

সাম্প্রতিক

এ ধরনের আরো নিবন্ধ